মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১, ০৫:৩৬ অপরাহ্ন

খুলনা উন্নয়ন মেলায় উত্তম সেবা ক্যাটাগরিতে প্রথম সিভিল সার্জন কার্যালয় ও সদর হাসপাতাল
বাবুল আকতার, খুলনা
Update : মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১

বাবুল আকতার খুলনা ।।

খুলনা উন্নয়ন মেলায় উত্তম সেবা প্রদান করায় প্রথম স্থান অধিকার করেছে সিভিল সার্জন অফিস ও ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল।স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী:স্বল্পোন্নত দেশ হতে উন্নয়নশীল বাংলাদেশ উদযাপনে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে সার্কিট হাউজ মাঠে রবিবার রাতে দুই দিনব্যাপী এই মেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে ২২টি প্রতিষ্ঠানকে সন্মানা ক্রেস্ট ও সদনপত্র প্রদান করা হয়।

এ মেলায় সরকারী- বেসরকারী ১২২টি স্টলের মধ্যে সেবা মূলক কাজের জন্য ৭টি, ষ্টল সুসজ্জিত কাজে ১৩ টি ও বেসরকারী ৩টি প্রতিষ্ঠানাকে জেলা প্রশাসন ক্রেস্ট ও সদনপত্র প্রদান করেন । সমাপনী অনুষ্ঠানে উত্তম সেবা প্রদানে সিভিল সার্জন ডাঃ নিয়াজ মোহামদের পক্ষে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ানের হাত থেকে ক্রেষ্ট গ্রহন করেন মেডিকেল অফিসার ( রোগ নিয়ন্ত্রন ) ডাঃ শেখ সাদিয়া মনোয়ারা।

উত্তম সেবা ক্যাটাগরির ৭টি সরকারী প্রতিষ্ঠান হচ্ছে , খুলনা সদর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স , খুলনা সার্কেল বিআরটিএ, খুলনা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি, খুলনা সিটি কর্পোরেশন, খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ ও জেলা সমাজ সেবা কার্যালয় । সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়েছি।

১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধু যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশে ফিরে দেশ গঠনে হাত দেন। তিনি দেশে স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠা করেন। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরে প্রেক্ষা পট ভিন্ন হয়ে যায়। তিনি আরও বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধাদের মুল্যায়ন হয়েছে। সকল স্থানে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। জাতির ইতিহাসে মুক্তিযোদ্ধা একবারই হওয়া যায়। মুক্তিযোদ্ধাদের অবদান জাতি সর্বদা স্মরণ করবে।

আমরা আজ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালন করছি। ২০৪১ সালে আমরা উন্নত দেশে পরিণত হবো।খুলনার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যানের মধ্যে বক্তৃতা করেন অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার সরদার রকিবুল ইসলাম, খুলনা জেলা পরিষদের

চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশীদ, বাগেরহাট জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ কামরুজ্জামান টুকু, সরকারি বিএল কলেজের (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যক্ষ শরীফ আতিকুজ্জামান, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা, খুলনা প্রেসক্লাবের সভাপতি এসএম জাহিদ হোসেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আলমগীর কবীর ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন মিন্টু।

স্বাগত জানান অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মোঃ সাদিকুর রহমান খান। এসময় পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাহবুব হাসান, অ্যাডভোকেট এনায়েত আলী ও বীর মুক্তিযোদ্ধা সরদার মাহবুবার রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিবার, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ও যুদ্ধকালীন বীর মুক্তিযোদ্ধা কামান্ডারসহ মোট ৭০ জনকে সম্মাননা প্রদান করা হয়।

এর আগে সকালে ‘রূপকল্প ২০৪১: উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনার বিভাগীয় কমিশনার মোঃ ইসমাইল হোসেন। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. শাহনেওয়াজ হোসেন।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ল্পোন্নত দেশ হতে উন্নয়নশীল বাংলাদেশ উদযাপন উপলক্ষে খুলনা সার্কিট হাউজ মাঠে একশত ২৭ টি স্টলে সরকারি-বেসরকারি দপ্তর তাদের উন্নয়ন কর্মকান্ড ও অগ্রগতি প্রদর্শন করে। দুই দিনব্যাপী কর্মসূচির উল্লেখযোগ্য অংশ ছিলো শোভাযাত্রা, উন্নয়ন

বিষয়ক ভিডিও প্রদর্শন, তরুণদের জন্য জাতির পিতার জীবনীর ওপর নির্মিত তথ্যচিত্র, ‘রূপকল্প ২০৪১: উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ’ বিষয়ক সেমিনার, শিক্ষার্থী ও তরুণদের জন্য উন্নয়ন বিষয়ক কুইজ ও উপস্থিত বক্তৃতা প্রতিযোগিতা, স্থানীয় বিভিন্ন উন্নয়নচিত্র প্রদর্শনী এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
জনপ্রিয়
সর্বশেষ সংবাদ
copyright protected
%d bloggers like this: